বিজ্ঞপ্তিঃ

করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় আতঙ্ক নয়, সচেতনতা জরুরি। প্রয়োজন ব্যাতিত জন সমাগম বর্জন করুন। হাত দিয়ে মুখমন্ডল স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকুন। কিছুক্ষন পর পর হাত সাবান দিয়ে পরিষ্কার করুন। নিয়মিত পর্যাপ্ত পরিমান পানি পান করুন। জরুরী স্বাস্থ্য পরামর্শের জন্যে, স্বাস্থ অধিদপ্তর প্রদত্ত ১৬২৬৩ অথবা ৩৩৩ নম্বরে যোগাযোগ করুন।

এই মাত্র পাওয়া :
ময়মনসিংহ ফুলবাড়িয়ায় এনায়েতপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে জনমনে একটি নাম বুলবুল হোসেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উপলক্ষে ময়মনসিংহ মহানগর কৃষক লীগের দিনব্যাপি কর্মসূচী অনুষ্ঠিত বিশ্ব মানব জননী শেখ হাসিনার জন্মদিনে দিনব্যাপী অনুষ্ঠান করেছে মেয়র আনিছ ময়মনসিংহ ভালুকায় ২ নংমেদুয়ারী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে জনমনে ছড়িয়ে একটি নাম আক্তার হোসেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে ময়মনসিংহ শহর ছাএলীগের সাবেক সভাপতি আব্দুল্লা-আল-মামুন-আরিফের দিনব্যাপি কর্মসুচী অনুষ্ঠিত। কেঁচো উৎপাদনে রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি পেলেন মোজেদা এনামুল হক, মুক্তাগাছা : অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের মৃত্যুতে মসিক মেয়র ইকরামুল হক টিটু’র শোক বার্তা ময়মনসিংহ “পিবিআই কর্তৃক অপহৃত ভিকটিম উদ্ধার অবসরপ্রাপ্ত সশস্ত্র বাহিনী কল্যাণ সংস্থা(অসকস) শ্রীমঙ্গল উপজেলা শাখার আলোচনা সভা-২০২০ নেত্রকোনা দুর্গাপুরে বজ্রপাতে এক শিক্ষার্থীর মৃত্যু
কৃষির ৫০০০ কোটি টাকার বিশেষ প্রণোদনা পুনঃঅর্থায়ন স্কিম গঠন

কৃষির ৫০০০ কোটি টাকার বিশেষ প্রণোদনা পুনঃঅর্থায়ন স্কিম গঠন

>> কৃষকের ঋণের সর্বোচ্চ সুদহার হবে ৪ শতাংশ
>> ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ঋণ আবেদন করতে হবে
>> স্কিমের থেকে পুরাতন ঋণ সমন্বয় করা যাবে না

করোনাভাইরাসে কৃষি খাতের ক্ষতি মোকাবিলায় কৃষকের জন্য ৫ হাজার কোটি টাকার ‘কৃষি খাতে বিশেষ প্রণোদনামূলক পুনঃঅর্থায়ন স্কিম’ নামে একটি বিশেষ তহবিল গঠন করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। ১৮ মাস (৬ মাস গ্রেস পিরিয়ডসহ) মেয়াদী এ ঋণের সর্বোচ্চ সুদহার হবে ৪ শতাংশ।

সোমবার (১৩ এপ্রিল) বাংলাদেশ ব্যাংকের কৃষিঋণ বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করা হয়েছে।

এর আগে রোববার (১২ এপ্রিল) ভিডিও কনফারেন্সে বক্তব্যকালে করোনাভাইরাসে কৃষি খাতের ক্ষতি মোকাবিলায়  কৃষকের জন্য ৫ হাজার কোটি টাকার বিশেষ প্রণোদনা ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর পরই কৃষি খাতে চলতি মূলধন সরবরাহের উদ্দেশ্যে পাঁচ হাজার কোটি টাকার পুনঃঅর্থায়ন স্কিম গঠন ও পরিচালনার নীতিমালা জারি করল বাংলাদেশ ব্যাংক।

দেশে কার্যরত সব তফসিলি ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীদের কাছে পাঠানো সার্কুলারে বলা হয়েছে, সম্প্রতি করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশের সাধারণ মানুষের দৈনন্দিন জীবনযাপনসহ অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড সীমিত হয়ে পড়েছে। দারুণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে দেশের কৃষি খাত। এই খাতে পর্যাপ্ত অর্থ সরবরাহ নিশ্চিত করা সম্ভব হলে দেশের সার্বিক কৃষি খাত ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে সক্ষম হবে। সেজন্যই কৃষি খাতের জন্য ৫ হাজার কোটি টাকার একটি পুনঃঅর্থায়ন স্কিম গঠনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

এই স্কিমের আওতায় পুনঃঅর্থায়ন গ্রহণে ইচ্ছুক তফসিলি ব্যাংকসমূহ বাংলাদেশ ব্যাংকের সাথে একটি অংশগ্রহণমূলক চুক্তি স্বাক্ষর করবে। চুক্তির মাধ্যমে এই স্কিমের আওতায় পুনঃঅর্থায়ন সুবিধা গ্রহণ করতে পারবে ব্যাংকগুলো। চলতি বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত গ্রাহকদের অনুকূলে ঋণ বিতরণ পূর্বক মাসিক ভিত্তিতে পুনঃঅর্থায়নের জন্য আবেদন করতে হবে। ব্যাংকগুলোর কৃষিঋণ বিতরণের লক্ষ্যমাত্রা ও সব ক্ষমতার ভিত্তিতে কৃষিঋণ বিভাগ কর্তৃক ব্যাংকসমূহের অনুকূলে তহবিল বরাদ্দ করা হবে। তবে গ্রাহক পর্যায়ে ঋণ বিতরণের পর বরাদ্দকৃত তহবিল থেকে পর্যায়ক্রমে তহবিলের সমপরিমাণ অর্থায়ন করবে বাংলাদেশ ব্যাংক।

শস্য ও ফসল খাতে চলমান ঋণপ্রবাহ পর্যাপ্ত থাকার দরুণ এ খাত অপেক্ষা কৃষির চলতি মূলধন ভিত্তিক খাতসমূহে অধিকতর ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছে। তাই এ খাতগুলোতে ঋণের প্রবাহ নিশ্চিত করা আবশ্যক। এর প্রেক্ষিতে চলতি মূলধন ভিত্তিক কৃষির অন্যান্য খাতে (হর্টিকালচার অর্থাৎ মৌসুম ভিত্তিক ফুল ও ফল চাষ, মৎস্য চাষ, পোল্ট্রি, ডেইরি ও প্রাণিসম্পদ খাত) পর্যাপ্ত অর্থ সরবরাহ নিশ্চিত করা সম্ভব হলে দেশের সার্বিক কৃষিখাত ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে সক্ষম হবে।

ঋণ বিতরণের ক্ষেত্রে ব্যাংকগুলো বিদ্যমান কৃষি ও পল্লী ঋণ নীতিমালায় বর্ণিত বিধিবিধানসমূহ অনুসরণপূর্বক ব্যাংকার-গ্রাহক সম্পর্কের আলোকে কেস-টু-কেস ভিত্তিতে বিবেচনা করবে এবং প্রতিটি ঋণের জন্য পৃথক হিসাব সংরক্ষণ করবে।

ঋণের মেয়াদ

ব্যাংকগুলো পুনঃঅর্থায়ন গ্রহণের তারিখ হতে অনধিক ১৮ মাসের (১২ মাস + গ্রেস পিরিয়ড ৬ মাস) মধ্যে আসল এবং সুদ (বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক নির্ধারিত ১% সুদ হারে) পরিশোধ করবে। আর ব্যাংকগুলোতে গ্রাহক পর্যায়েও ঋণের সর্বোচ্চ মেয়াদ হবে ঋণ গ্রহণের তারিখ হতে ১৮ মাস (৬ মাস গ্রেস পিরিয়ডসহ)।

ঋণের সুদের হার

এ স্কিমের আওতায় ব্যাংকগুলো বাংলাদেশ ব্যাংক হতে নির্ধারিত ১ শতাংশ সুদ হারে পুনঃঅর্থায়ন সুবিধা পাবে। আর গ্রাহক পর্যায়ে সুদের হার হবে সর্বোচ্চ ৪ শতাংশ। এই সুদ হার চলমান গ্রাহক এবং নতুন গ্রাহক উভয় ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য হবে।

ঋণ বিতরণের খাত

শস্য ও ফসল খাত ছাড়া কৃষির অন্যান্য চলতি মূলধন নির্ভরশীল খাতসমূহ (হর্টিকালচার অর্থাৎ মৌসুম ভিত্তিক ফুল ও ফল চাষ, মৎস্য চাষ, পোল্ট্রি, ডেইরি ও প্রানিসম্পদ খাত)। তবে, কোনো একক খাতে ব্যাংকের অনুকূলে বরাদ্দকৃত ঋণের ৩০ শতাংশের বেশি ঋণ বিতরণ করতে পারবে না।

এছাড়া, যেসব উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান কৃষকের কাছ থেকে উৎপাদিত কৃষিপণ ক্রয় করে সরাসরি বিক্রয় করে থাকে, তাদেরকেও এ স্কিমের আওতায় ঋণ বিতরণের জন্য বিবেচনা করা যাবে। তবে এক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক কোনো উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠানকে এককভাবে পাঁচ কোটি টাকার বেশি ঋণ বিতরণ করতে পারবে না।

এই স্কিমের আওতায় বিতরণকৃত ঋণের অর্থের কোনো অংশের সদ্ব্যবহার হয়নি জানতে পারলে, বাংলাদেশ ব্যাংক সমপরিমাণ অর্থের ওপর নির্ধারিত হারের অতিরিক্ত ২ শতাংশ সুদসহ এককালীন জরিমানা করবে।

ভালো লাগলে নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 msitworld.info
Design BY msitworld