বিজ্ঞপ্তিঃ

করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় আতঙ্ক নয়, সচেতনতা জরুরি। প্রয়োজন ব্যাতিত জন সমাগম বর্জন করুন। হাত দিয়ে মুখমন্ডল স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকুন। কিছুক্ষন পর পর হাত সাবান দিয়ে পরিষ্কার করুন। নিয়মিত পর্যাপ্ত পরিমান পানি পান করুন। জরুরী স্বাস্থ্য পরামর্শের জন্যে, স্বাস্থ অধিদপ্তর প্রদত্ত ১৬২৬৩ অথবা ৩৩৩ নম্বরে যোগাযোগ করুন।

এই মাত্র পাওয়া :
গাজীপুরে ইয়াবা ব্যবসায়ীর কাছে সাংবাদিককে প্রাণনাশের হুমকি থানায় অভিযোগ এমএলএম কোম্পানির সংবাদ প্রকাশ করায় সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন সোমবার নারীদের স্বাবলম্বী করতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপহার মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় কর্তৃক সেলাই মেশিন বিতরণ অনুষ্ঠান গাজীপুরে বিএনপি স্বেচ্ছাসেবকদলের উদ্বোগে তারেক রহমানের ৫৬তম জন্মদিন পালন। গাজীপুর অবসরপ্রাপ্ত সশস্ত্র বাহিনী কল্যাণ সংস্থা উদ্যোগে সশস্ত্র বাহিনী দিবস পালিত গাজীপুর মহানগর বিএনপির স্বেচ্ছাসেবক দলের কর্মী সভা অনুষ্ঠিত। ময়মনসিংহ ব্যুরো অফিস হতে জাতীয় দৈনিক মুক্তখবরের প্রতিনিধিদের আইডি কার্ড প্রদান । ময়মনসিংহে মাথার খুলি হাড়সহ গ্রেফতার ১ সাংবাদ কর্মীকে মোবাইল ফোনে গুলি করে প্রাণ নাশের হুমকি। গাজীপুর মহানগর ২২ নং ওয়ার্ডে ধূমপান মুক্ত বাংলাদেশ চাই সোসাইটির মতবিনিময় সভা অনুষ্টিত হয়েছে ।
জিডিপি নিয়ে বিশ্বব্যাংকের পূর্বাভাস পরিপক্ব নয়: অর্থমন্ত্রী

জিডিপি নিয়ে বিশ্বব্যাংকের পূর্বাভাস পরিপক্ব নয়: অর্থমন্ত্রী

করোনাভাইরাসের কারণে বাংলাদেশের চলতি অর্থবছরের প্রবৃদ্ধিতে ধস নামতে পারে। এ অর্থবছর প্রবৃদ্ধি হতে পারে ২ থেকে ৩ শতাংশ। এমনটিই জানিয়েছে বিশ্বব্যাংক।

এ বিষয়ে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, বাংলাদেশের জিডিপি নিয়ে বিশ্বব্যাংকের এ পূর্বাভাস সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়, কারণ এখনই এটা বলার সময় আসেনি। বিশ্বব্যাংকের এই পূর্বাভাস সময় উপযোগী বা পরিপক্ব কোনোটাই নয় বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

সোমবার (১৩ এপ্রিল) মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ দাবি করা হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বিশ্বব্যাংকের প্রকাশিত ‘সাউথ এশিয়া ইকোনমিক ফোকাস’ প্রতিবেদনে বাংলাদেশের মোট অভ্যন্তরীণ উৎপাদনের হার (জিডিপি) নিয়ে বিশ্বব্যাংকের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, চলতি বছর বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি কমে দাঁড়াবে ২ থেকে ৩ শতাংশ।

এ বিষয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের জিডিপি নিয়ে বিশ্বব্যাংকের এ পূর্বাভাস সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়, কারণ এখনই এটা বলার সময় আসেনি। বিশেষ করে অঙ্ক ধরে বলার উপযুক্ত সময় এটা নয়। আমাদের সামনে এখনও ৮ মাসের তথ্য রয়েছে। সেগুলো যাচাই করে কিছুদিন আগে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) বলেছে, এবার আমাদের প্রবৃদ্ধি হবে ৭ দশমিক ৮ শতাংশ। ফলে বিশ্বব্যাংকের এই পূর্বাভাসকে আমি সময় উপযোগী বা পরিপক্ব কোনোটাই মনে করি না।

তিনি বলেন, করোনাভাইরাসের প্রভাবে সারা বিশ্বের মতো আমাদের জিডিপিও কমবে। তবে আমাদের এতটা কমবে না। কমপক্ষে ৬ শতাংশের ওপরে জিডিপি এ বছরও আমরা অর্জন করতে সক্ষম হবো। কারণ বাংলাদেশে করোনার প্রভাব পড়ার আগেই আমাদের অর্থবছরের ৮ মাস অতিবাহিত হয়েছে। বাকি আছে মার্চ-জুন চার মাস। এ সময়ে যদি আমাদের শূন্য কিংবা নেগেটিভ গ্রোথও হয় তারপরও আগের ৮ মাসে আমরা যা অর্জন করেছি সেটা ৬ শতাংশের বেশিই হবে।

অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, অর্থনীতির চেয়ে আমাদের এখন সবচেয়ে বড় অগ্রাধিকার হচ্ছে দেশের মানুষের জীবন রক্ষা করা। তাদের চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করা, খাবারের জোগান দেয়াসহ অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করাই এখন আমাদের মৌলিক কাজ।

তিনি বলেন, আমাদের প্রবৃদ্ধির প্রধান তিনটি খাত হলো- কৃষি, শিল্প ও সেবা। আমাদের কৃষিখাতে করোনাভাইরাসের তেমন কোনো প্রভাব পড়েনি। এটা যদি দীর্ঘায়িত না হয় তাহলে কৃষিখাতে আমরা লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে সম্পূর্ণ প্রবৃদ্ধি অর্জনে সক্ষম হবো। শিল্প খাতে কিছুটা প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। এটা কাটানোর জন্য আমরা বিভিন্ন ধরনের উদ্যোগও নিয়েছি। একইভাবে সেবাখাতেও কিছুটা প্রভাব পড়ছে। আমরা স্বীকার করছি প্রবৃদ্ধি কমবে, কিন্তু এতটা কমবে না। আল্লাহর কাছে আমাদের প্রার্থনা, তিনি বাংলাদেশসহ সারা বিশ্বের মানুষকে এ মহামারি থেকে রক্ষা করুন।

রোববার (১২ মার্চ) জিডিপির প্রবৃদ্ধি নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করে যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটনের বিশ্বব্যাংকের প্রধান কার্যালয়।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, সারা বিশ্বের মেরুদণ্ডে আঘাত হেনেছে করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯)। বাদ পড়েনি বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোও। করোনার কারণে বাংলাদেশের চলতি অর্থবছরের প্রবৃদ্ধিতে ধস নামতে পারে। এ অর্থবছর প্রবৃদ্ধি হতে পারে ২ থেকে ৩ শতাংশ। তার পরের অর্থবছরে আরও কমতে পারে।

দক্ষিণ এশিয়ার কিছু দেশের অবস্থা আরও খারাপ। এর চারটি দেশে প্রবৃদ্ধি তো হবেই না, বরং ঋণাত্মক থাকবে। চলতি অর্থবছরে প্রবৃদ্ধির দিক থেকে সবচেয়ে ভালো অবস্থানে থাকবে ভারত। অবশ্য তার পরের অর্থবছরে ভারতেরও ধস নামবে।

চলতি অর্থবছরসহ আগামী তিন অর্থবছরে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে সবচেয়ে ভালোভাবে ঘুরে দাঁড়াবে আফগানিস্তান, তারপর মালদ্বীপ। এছাড়া বাকি দেশগুলো তিন অর্থবছরে ভালোভাবে ঘুরে দাঁড়াতে পারবে না।

ভালো লাগলে নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 msitworld.info
Design BY msitworld